সহবাসের সময় স্ত্রীর করণীয় কী জেনে নিন

                 সহবাসের সময় স্ত্রীর করণীয়

প্রিয় পাঠক , আজ আমরা জানব সহবাসের সময় স্ত্রীর করনীয় কাজ গুলো সম্পর্কে। জানতে হলে সম্পূর্ন পোষ্টটি পড়ুন।
কিছু কিছু  নারীরা রয়েছে যারা মিলনের  জন্য  খুব  আগ্রহ অনুভব কিন্তু কিছু করার থাকেনা কারণ কিছু কিছু পুরুষ রয়েছেন যাদের এই ইচ্ছাটুকু কখনো তারা অনুভব করতে পারে না কারণ এমন কিছু পুরুষ রয়েছেন যারা স্ত্রীর সঙ্গে তেমন ভালো ব্যবহার করেন না তার ফলে মিলনের সময় দিকটা তারা কখনও বেছে নিতে পারেন। স্ত্রীদের ইচ্ছা থাকার শর্তেও সামিরা মেলামেশা করতে ইচ্ছুক নয়। 

স্বামীর মধ্যে এক প্রকার আগ্রহ সৃষ্টি করার জন্য। আপনি কিছু কাজ করতে পারেন সেগুলো জেনে নিন।ঋতুভেদে গমনের সময় যৌন উত্তেজক পোশাক ব্যবহার করতে পারেন। পোশাক পরার ক্ষেত্রে সবচেয়ে  বেশি হয় আপনি যদি বিকিনি ব্যবহার করতে পারেন।  বিকিনি এটা ব্যবহার করার পরে আপনার স্বামী আপনার প্রতি আগ্রহ অনেকটাই কমে যায়।

যৌন মিলনের সময় স্বামী স্ত্রী নানান ধরনের গল্প করতে পারেন এতে যৌনমিলনের সময় বৃদ্ধি পাবে এবার স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে এক প্রকার ভালোবাসা সৃষ্টি হবে তাই সহবাস কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার সময় দুজনের মধ্যে নানারকম গল্প করতে পারেন।দৈহিক মিলনের সময় আরও নানা কার্যক্রম আপনার করতে পারেন দহিক মিলনের সময় কনডম ব্যবহার করতে পারেন এতে দীর্ঘ সময় সহবাস করা যাবে এবং এর ফলে আপনাকে অতিরিক্ত প্রটেক্টর ঔষধ খেতে হবে না।

সহবাসের পর নারীর করণীয়

তেমন একটি ভুল ধারণা হলো, বিশেষ পদ্ধতিতে গোপনাঙ্গের ভেতর পরিষ্কার করা। গোপনাঙ্গের ভেতর পরিষ্কারের প্রয়োজন হয় না, তবে বহিঃস্থ ত্বক পরিষ্কার করা যাবে। যৌন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, সহবাসের পর গোপনাঙ্গের যত্ন নেওয়ার প্রয়োজন আছে- তবে ভুল পদক্ষেপ নেওয়া যাবে না। এখানে সহবাসের পর করণীয় উল্লেখ করা হলো।

 বাথরুমে যান: লস অ্যাঞ্জেলেস অবস্টেট্রিসিয়ানস অ্যান্ড গাইনিকোলজিস্টসের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ অ্যালিসন হিল এবং ইভন বন জানান, গোপনাঙ্গের পিএইচ ব্যালেন্স বজায় রাখা এবং মূত্রনালী সংক্রমণের ঝুঁকি কমানোর সহজ উপায় রয়েছে। তাদের মতে, তেমন একটি উপায় হলো- সহবাসের পর প্রস্রাব সেরে নেওয়া, যার ফলে জীবাণু বের হয়ে যাবে। অন্যথায় সহবাসের সময় ঢুকেপড়া জীবাণু মূত্রাশয় বা মূত্রনালিতে সংক্রমণ সৃষ্টি করতে পারে। ডা. হিল বলেন, ‘ভুল পদ্ধতিতে ওয়াইপ করলেও সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়তে পারে। যদি রেক্টামের জীবাণু গোপনাঙ্গে প্রবেশ ঠেকাতে চান, তাহলে সামনে থেকে পেছনে ওয়াইপ করুন।’
মৃদুভাবে পরিষ্কার করুন: সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে সহবাসের পর প্রস্রাব সেরে নেয়া খুবই কার্যকরী উপায়। তবে এতেই গোপনাঙ্গের সুস্থতা পুরোপুরি নিশ্চিত হয় না। গোপনাঙ্গ সুস্থ রাখতে মৃদুভাবে পরিষ্কারেরও প্রয়োজন হতে পারে। ডা. ইভন বলেন, ‘গোপনাঙ্গের পিএইচ ব্যালেন্স ধরে রাখতে সহবাসের পর গোপনাঙ্গ থেকে বীর্য সরিয়ে ফেলতে হবে। এর ফলে ছত্রাক সংক্রমণ, মূত্রনালী সংক্রমণ ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধ হবে।’ ডা. হিল জানান, ‘ঘাম, বীর্য ও জীবাণু দূর করতে ভালোভাবে কুসুম গরম পানি ও মিল্ড সোপ দিয়ে মৃদুভাবে পরিষ্কার করে নিতে পারেন। কোনো সুগন্ধি সাবান ব্যবহার করবেন না
 ভালোভাবে শুকিয়ে নিন: ডা. ইভন সহবাসের পর প্রস্রাব সেরে নেয়া এবং কুসুম গরম পানি-মাইল্ড সোপ দিয়ে ধোয়ার পর পরিষ্কার তোয়ালে দিয়ে মুছে নিয়ে ঢিলেঢালা অন্তর্বাস পরতে পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ গোপনাঙ্গ ভেজা থাকলে ছত্রাক সংক্রমণের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। টাইট অন্তর্বাস পরিহার করুন, যেমন- নাইলনের অন্তর্বাস। এর পরিবর্তে কটনের অন্তর্বাস পরুন, অবশ্যই ঢিলেঢালা হতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডায়াবেটিস অ্যান্ড ডাইজেস্টিভ অ্যান্ড কিডনি ডিজিজেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, টাইট ফিটিং অন্তর্বাস পরলে গোপনাঙ্গের আর্দ্রতা বেড়ে গিয়ে জীবাণুর বংশবিস্তার বৃদ্ধি পায়।
পানি পান করুন: সহবাসকালে ঘেমে গেছেন? তাহলে শরীরের হারানো পানি পুনরুদ্ধারে এক গ্লাস পানি পান করে নিতে পারেন। ইন্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটি হেলথের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ নিকোল স্কট সহবাসের পর নারী-পুরুষ উভয়কে পানি পানের পরামর্শ দিয়েছেন। গবেষণা বলছে, শারীরিক পানিশূন্যতায় শরীরের বিভিন্ন অংশে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে- এমনকি গোপনাঙ্গতেও। এছাড়া শরীরে পর্যাপ্ত পানি থাকলে মূত্রাশয়-মূত্রনালী থেকে সংক্রমণ সৃষ্টিকারী জীবাণু দূর হয়ে যায়।

প্রথম মিলনের সময় যে ব্যাপারগুলো মনে রাখা জরুরী 

যৌনতা জড়িয়ে আছে আমাদের জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে। তাই এই বিষয়ে লজ্জা পাবার কিছু নেই। বিশেষ করে জীবনের প্রথম যৌন মিলন প্রসঙ্গে। আমাদের সমাজে সাধারণত বিয়ের আগে যৌন মিলনকে প্রশ্রয় দেয়া হয় না। আর যেহেতু যৌনতা বিষয়ে বিশেষ কথা বলতে আমরা অভ্যস্ত নই, তাই অনভিজ্ঞতার কারণে বেশিরভাগ নারী-পুরুষেরই প্রথম যৌন মিলনের অভিজ্ঞতা সুখকর হয় না। জেনে রাখুন ৭টি বিষয়, যা জীবনের প্রথম যৌন মিলনের ক্ষেত্রে কাজে আসবে আপনার।

১) যৌন মিলন খুবই স্বাভাবিক একটি শরীরবৃত্তীয় ব্যাপার, এটা নিয়ে ভয় বা সংকোচ করার কিছু নেই। প্রথম যৌন মিলনেই যে আপনার দুর্দান্ত পারফর্মেন্স হবে, এমনটা ভাববেন না। এমনটা আশাও করবেন না। তবে হ্যাঁ, যত নার্ভাস হবেন, যৌন মিলনের অভিজ্ঞতা তত খারাপ হবে। তাই প্রথম মিলনের আগে অবশ্যই পর্যাপ্ত মানসিক প্রস্তুতি রাখুন।

২) প্রথম যৌন মিলনে খুব দ্রুত বীর্যপাত হয়ে যায় অধিকাংশ পুরুষের। এটা নিয়ে ঘাবড়ে যাবেন না। নিজে পুরুষত্বহীন বা দুর্বল ভাববেন না। কয়েকঘণ্টা বিরতি দিয়ে আবার চেষ্টা করুন। আগের চাইতে ভালো ফল পাবেন।

৩) প্রথম যৌন মিলনের সময় প্রত্যেক নারীই ব্যথা পাবেন, এই ব্যাপারটির জন্য মানসিক প্রস্তুতি রাখুন। ব্যথা পাবেন, সামান্য রক্তপাত হবে। এই বিষয়টি নিয়ে একদম ঘাবড়ে যাবেন না। পরবর্তীতে একটু জ্বালাপোড়াও করতে পারে। তবে বিষয়টি সাময়িক। কয়েক ঘণ্টার মাঝেই ঠিক হয়ে যাবে। যদি রক্তপাত বন্ধ না হয় বা জ্বালাপোড়া বেশি করে, তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন।

৪) পুরুষ সঙ্গী একটু বিশেষ খেয়াল রাখবেন, যদি নারী সঙ্গীরও এটা প্রথম যৌন অভিজ্ঞতা হয়ে থাকে। জোর করে যোনিতে প্রবেশের চেষ্টা করবেন না। কিংবা বল প্রয়োগ করবেন না। খুব আদরের সাথে চেষ্টা করুন। সঙ্গিনীকে পর্যাপ্ত উত্তেজিত করুন, পুরো বিষয়টি সহজ হয়ে আসবে দুজনের জন্যই।

৫) প্রথম যৌন মিলনে বেশিরভাগ নারীরই অরগাজম আসবে না, কেননা নারীদের অরগাজমের সাথে অভিজ্ঞতার ব্যাপারটি জড়িয়ে আছে। তাই এটা নিয়ে হতাশ হবেন না।

৬) প্রথম যৌন মিলনেই কেউ গর্ভধারণ করতে চান না। তবে গর্ভ নিরোধক ব্যবস্থা গ্রহনের পরেও অনভিজ্ঞতার কারণে ভুল হয়ে যেতে পারে। যেমন সঠিক সময়ে কনডম ব্যবহার করতে না পারা, কনডমে ফুটো হয়ে যাওয়া বা ছিঁড়ে যাওয়া ইত্যাদি। এমন ঘটনা ঘটে গেলে সাহায্য নিতে হবে জরুরী গর্ভনিরোধক পিলের। আইপিল বা সমমানের যে কোন ওষুধ কাজে আসবে। খুব ভালো হয় ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিলে।

স্বামী হিসেবে স্ত্রীকে মিলনে দ্রুত তৃপ্তি দিতে করণীয়

স্বামী হিসেবে স্ত্রীকে দ্রুত তৃপ্তি দিতে প্রথমে আপনার স্ত্রীর নিকট আপনি হতে হবে একজন রক্ত মাংসে গড়া পুরুষ। আর যখন পরস্পর জৈবিক চাহিদা মেটাতে যাবেন তখন পুরুষ হিসেবে আপনার করণীয় যে দিকগুলো সেগুলো নিয়ে আলোচনা করা যায়।

ওই সময়ে করণীয়-
১। গালে ঠোঁটে ঘন ঘন চুম্বন করা।
২। স্ত্রীর ঊরুদেশ জোরে জোরে মৈথুনের আগে ঘর্ষণ করা।
৩। মিলনের আগে যোনিদেশ, ভগাঙ্কুর কামাদ্রি আলতো ভাবে ঘর্ষণ করা।
৪। ভগাঙ্কুর মর্দন।
৫। মৈথুনকালে স্তন মর্দ্দন।
৬। সহাবাসের আগে যদি পুরুষাঙ্গের আগায় খুব সামান্য পরিমাণ কর্পূর লাগানো হয় তবে স্ত্রী দ্রুত
তৃপ্তি লাভ ক’রে থাকে।

তবে খেয়াল রাখতে কর্পূর যেন বেশি না হয়, নচেৎ হিতে বিপরীত হতে পারে। অর্থাৎ কর্পুর বেশি হলে স্ত্রী যোনি এবং আপনার পুরুষাঙ্গ জ্বলন অনুভূত হ’তে পারে। 

ইসলামে স্বামী স্ত্রীর মিলনকে বেহেশতের সুখের সাথে তুলনা করা হয়েছে। বৈজ্ঞানিকভাবে ও প্রামণিত যে অধিক সময় যাবত্‍ যৌন মিলন অত্যন্ত সুখের। তবে এই আনন্দ তখনই মাটি হয়ে যায় যখন দ্রুত বীর্যপাতন হয়ে যায়। অধিক সময় ধরে যৌন মিলন করার জন্য আপনার ডক্টর তিনটি পদ্ধতির সাথে পরিচয় করিয়ে দিবে।
মিলনে পুরুষের অধিক সময় নেওয়া পুরুষত্বের মুল যোগ্যতা হিসাবে গন্য হয়। যেকোন পুরুষ বয়সের সাথে সাথে সহবাসের নানাবিধ উপায় শিখে থাকে।

যেভাবে সহবাস করলে মেয়েরা অধিক আনন্দ লাভ করে

সহবাসে পূর্ণ তৃপ্তি পেতে কিছু টিপস্,সহবাসে পূর্ণ তৃপ্তি পেতে,পিরিয়ডের সময় সেক্স,জীবনে প্রথম বার সেক্স করার সময় কি করবেন,সহবাসে মজা,সহবাস মজা,স্ত্রীর সাথে সহবাসে মজা পাচ্ছেন না,স্ত্রীর সাথে সহবাসে মজা পাচ্ছেন,স্ত্রীর সাথে সহবাসে মজা,মজা পাচ্ছেন ,সহবাসে মজা পাচ্ছেন না,সহবাসে মজা পাচ্ছেন,সহবাসে স্ত্রীকে পূর্ণ তৃপ্তি দিতে চান,সহবাসে বাধ্য করেছে কাজিন,মেয়েদের সহবাসে মজা,আনন্দ না পাওয়ার কারন কি,বীর্যের পরিমান কম হলে কি সহবাসের মজা কমে,মেয়েদের উত্তেজনার চরম তৃপ্তির লক্ষণগুলো,স্বামীকে মজা ও সহবাসে বেশি সুখে রাখতে,

সহবাসে’ই আসল মজা,সহবাসের পর যা করবেন,কোলে বসে সহবাসে মেয়েরা কতটুকু মজা পায়,গুদে কিভাবে লিঙ্গ ঢুকালে মেয়েরা খুব বেশী মজা পায়,সহবাসের সময় যেই কাজটি না করলে স্ত্রী খুশি হয় না,মোটা বা চিকন কেমন মেয়েদের সাথে সহবাস করলে বেশি মজা পওয়া যায়,প্রথম রাতে মধুর সহবাসের গোপন উপায়,কিভাবে ঢুকালে মেয়েরা খুব বেশী মজা পায়,সহবাস করলে কারা কিভাবে বেশি সুখ পায়,কিভাবে যৌন মিলন করলে মেয়েরা বেশি মজা পায় ,আনন্দময় সহবাস,সহবাস,কোলে বসে সহবাসে,মোটা বা চিকন কেমন মেয়েদের,যৌন মিলন করলে মেয়েরা বেশি মজা পায়

সহবাসে মজা পেতে করণীয় কি? আজকাল অনেকেই খুজেন সহবাস কিভাবে আরও আনন্দময় করা যায়। পৃথিবীতে যত মানুষ আছে সবার সহবাস করে মজা পাওয়ার ব্যপারটা আলাদা। এর অন্যতম কারণ এক এক জন একভাবে সহবাস সুখ পেতে ভালবাসে।কোন মেয়ে জোরে করতে ভাবাসে আবার কোন মেয়ে আস্তে করতে ভালবাসে। কেউ সামন থেকে করতে ভালবাসে কেউ পিছন থেকে করতে ভালবাসে।
কেউ চুষতে ভালবাসে আবার কেউ হাত দিয়ে করতে ভালবাসে। তাই সবার ভাল লাগা ভালবাসা এক করা যাবে না। আপনাকে বেছে নিতে হবে যে আপনার সঙ্গীনি কিভাবে বেশী সুখ অনুভব করে। যেভাবে আপনার সঙ্গী পছন্দ করে সেভাবে করবেন। আর নিচের নিয়মগুলো মানলে আপনার সহবাস হয়ে উঠতে পারে চরম সুখের সহবাস।

Comments