কম্পিউটার ব্যবহারের ভালো ও খারাপ দিক

                     কম্পিউটারের ব্যবহার

 কম্পিউটার একটি উচ্চ গণতান্ত্রিক ডিভাইস, যা ডেটা প্রসেস এবং সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয়। এটি মানুষের সাথে তার ইন্টারফেসের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে সক্ষম এবং বিভিন্ন কাজে সাহায্য করে, যেমন ডেটা প্রসেসিং, ইন্টারনেট ব্রাউজ করা, গেম খেলা ইত্যাদি। কম্পিউটার হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার থাকে এবং এটি বিভিন্ন ধরণের ডিভাইস এবং সিস্টেমের মাধ্যমে কাজ করে। কম্পিউটারের ভালো দিকগুলি অনেকগুলি রয়েছে যা ব্যবহারকারীদের জন্য সুবিধা এবং উন্নতি তৈরি করে।

*তাকমীল সুবিধা:* কম্পিউটারের মাধ্যমে তাকমীল করার সুবিধা অবশ্যই উল্লেখযোগ্য। এটি লোকেরা বিভিন্ন প্রকল্পে এবং সাথে কাজ করতে সক্ষম হয়ে তাদের আলোচনা এবং সাপ্তাহিক মিটিং সহজেই অনুষ্ঠিত করতে সাহায্য করে।

*গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের সহজ অনুসন্ধান:* কম্পিউটারের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য খুঁজে পাওয়া সহজ হয়েছে। ইন্টারনেটে বিশাল তথ্য ভাণ্ডার অসীম, যা বিভিন্ন ক্ষেত্রে জ্ঞান অর্জনে সাহায্য করে।

*সুযোগ এবং সাহায্য:* কম্পিউটার ব্যবহারের মাধ্যমে অনেক ক্ষেত্রে সুযোগ এবং সাহায্য প্রদান করা হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, অনলাইন শিক্ষা, মোবাইল এ্যাপ্লিকেশন এবং সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইটগুলি লোকদের জনপ্রিয় সূযোগ হয়ে উঠছে।

*কর্মের ক্ষমতা:* কম্পিউটার একজন ব্যবসায়িক বা কর্মীর কর্মের ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। এটি গতি, দক্ষতা এবং কাজের সহজতম পদ্ধতিতে কাজ করার সুবিধা সৃষ্টি করে।

*বিনয় এবং সমৃদ্ধি:* কম্পিউটার সমৃদ্ধি এবং বিনয় উৎপন্ন করতে সাহায্য করতে পারে, যা একটি সম্বিদানশীল সমাজ গঠনে অবদান করতে সাহায্য করতে পারে।

কম্পিউটারের এই ভালো দিকগুলি সম্ভাবনাময়, উন্নত এবং সুস্থ সমাজ গঠনে অবদান রাখতে সাহায্য করতে পারে।কম্পিউটারের ব্যবহারের খারাপ দিকগুলি অনেকগুলি রয়েছে যা সমস্ত ব্যবহারকারীদের জন্য ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।

*ভ্রান্তিকর তথ্য:* ইন্টারনেটে ভ্রান্তিকর তথ্যের প্রাপ্তির ঝুঁকি বাড়ায়। অসঠিক বা ভ্রান্তিকর তথ্য অনুসন্ধানের ফলে লোকবলা মিথ্যা বা অসত্য বিশ্বাস করতে পারে, যা দোকানে বা ব্যবহারিক জীবনে ক্ষতিকর।

*সিবি‌সি হ্যাকিং এবং ভাইরাস:* কম্পিউটারে সিবি‌সি হ্যাকিং এবং ভাইরাসের ধারাবাহিক বাড়াতে সহায় করছে। এটি ব্যক্তিগত তথ্যের আপবাদ এবং ডেটা লসের সম্ভাবনা বাড়াতে পারে এবং অসুস্থ মার্জিনের কারণে প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হতে পারে।

*সময়ের অসদুপায়ে ব্যবহার:* কম্পিউটারে বিশাল সময় অসদুপায়ে ব্যবহারের কারণে সামাজিক জীবনে আপত্তি হতে পারে। এটি পরিবার এবং সমাজের সাথে যোগাযোগ এবং যোগস্তর কমে আনতে পারে এবং ব্যক্তিগত সম্পর্কে অসুস্থি তৈরি করতে পারে।

*সাইবার বুলি*: কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের ব্যবহার এবং সম্প্রদায়ে সাইবার বুলির বিস্তারিত বাড়তে সহায় করে। এটি আত্মহত্যা বা অন্যান্য ক্ষতির কারণ হতে পারে, সামাজিক মাধ্যমে অবগতি অভাব অথবা অন্যান্য প্রয়োজনে।

*স্বাস্থ্যের সমস্যা:* কম্পিউটারের দৃষ্টিতে দেখা অসম্ভব প্রকারে হতে পারে, যা আই প্রস্থান বা কম্পিউটার ব্যবহারের সময় হতে পারে। এটি চোখের সমস্যা, গলা দুকুলি, হাতের ও কন্ঠের ক্ষতি সহ বিভিন্ন সমস্যার কারণ হতে পারে।

*সুরক্ষা সমস্যা:* কম্পিউটারে তথ্য সুরক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। হ্যাকাররা সুরক্ষা বাধার সাথে তথ্যে অগোচর প্রবেশ করতে পারে ।

Comments